পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > বাংলাদেশ > পরিবেশ > বগুড়ায় বিভিন্ন পয়েন্টে যমুনার পানি বৃদ্ধি, হুমকিতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

বগুড়ায় বিভিন্ন পয়েন্টে যমুনার পানি বৃদ্ধি, হুমকিতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

বগুড়ায় যমুনার পানি ভয়াবহ ভাবে বেড়ে চলায় বিভিন্ন পয়েন্টে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। সারিয়াকান্দি ও ধুনট উপজেলার অন্তত ১০টি পয়েন্টে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ দিয়ে পানি ভিতরের অংশে প্রবেশ করছে।
এতে এসব এলাকার লোকজন ব্যাপক আতঙ্কের মধ্যে পড়েছে। অনেকে বাড়ি ঘর সরিয়ে নিতে শুরু করেছে।

মঙ্গলবার যমুনার পানি বিপদসীমার ১২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। অপর দিকে, যমুনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাঙালী নদীর পানিও বাড়ছে। দুই নদীর নিম্নাঞ্চলের এলাকাগুলো এখন প্লাবিত। বন্যার্ত ও বাঁধের ওপরসহ বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নেয়া লোকজনের সংখ্যা বাড়ছে।

জেলা ত্রাণ অফিসের তথ্য মতে, নতুন করে সৃষ্ট বন্যায় জেলার সারিয়াকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের ৮৯টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২৫ হাজার ৯৮২টি পরিবারের লক্ষাধিক মানুষ। এরমধ্যে সারিয়াকান্দিতে ১৮ হাজার ৯৩৭টি, সোনাতলায় ৪ হাজার ৮০৫টি এবং ধুনটে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২ হাজার ২৪০টি পরিবার।

জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা শাহারুল ইসলাম মোঃ আবু হেনা জানান, বন্যাদুর্গতদের এজন্য এ পর্যন্ত ৭০ মেট্রিক টন চাল, ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং নগদ ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে সারিয়াকান্দিতে ৫০ মেট্রিক টন চাল, ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার ও নগদ ১ লাখ টাকা, সোনাতলায় নগদ ৫০ হাজার টাকা এবং ধুনটে ২০ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হোসেন আলী জানান, ইতোমধ্যেই তিন উপজেলায় মোট ৭৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এ কারণে সারিয়াকান্দিতে ৫৪টি, সোনাতলায় ১৪টি এবং ধুনটে ৫টি বিদ্যালয়ের পাঠদান কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

কৃষি বিভাগের দেওয়া তথ্য মতে, দ্বিতীয় দফা বন্যায় ফসলের ব্যপক ক্ষতির আশঙ্কা আছে। ইতোমধ্যেই এই অঞ্চলের ৪ হাজার ৮৩৫ হেক্টর জমির ফসল পানির নিচে তলে গেছে। উল্লেখযোগ্য ফসলের মধ্যে আউস ৭১৫, আমন বীজতলা ২০, রোপা আমন ৩৯৭২, শাকসবজি ১২৮ হেক্টর।

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সারিয়াকান্দি উপজেলার কামালপুর ইউনিয়নের গোদাখালি বাঁধ ভাঙনের উপক্রম হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডেরপক্ষ থেকে বাঁধের ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রুহুল আমিন জানান, আরও দুই দিন পানি বৃদ্ধির সম্ভাবনা আছে। নদীতে পানি বাড়লেও বাঁধ এখন পর্যন্ত ঝুঁকিমুক্ত আছে ।

x

Check Also

পাবনায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি, ১০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

নিজস্ব প্রতিনিধি: পদ্মা ও যমুনা নদীর পানি অব্যাহত বৃদ্ধির কারণে পাবনার ৫টি উপজেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ। জেলায় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। এর মধ্যে ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা ...

বাংলাদেশ ভারত নেপালে বন্যায় ২৫০ জনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালে গত কয়েক দিনে ভারি বৃষ্টিপাত এবং এর ফলে সৃষ্ট বন্যা, ভূমিধসে প্রায় ২৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ তিন দেশে কয়েক লাখ মানুষ বসতবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়শিবিরে ঠাঁই নিয়েছে। বন্যাকবিলত ...

ভারতে সব গেট হঠাৎ খুলে দেয়ায় ডুবে যাচ্ছে বাংলাদেশ !

কুড়িগ্রামে ধরলা নদীর বাঁধ কেন ভেঙে গেছে, তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন জেলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা। তারা বলেছেন, ইঁদুরের গর্ত আর উইপোকার ঢিবির কারণে বাঁধ দুর্বল হয়ে ভেঙে পড়েছে এবং বানের জলে ভেসে গেছে। তবে স্থানীয়রা ...

শিরোনামঃ