পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > বাংলাদেশ > সরকার > সমালোচকদের উচিত ক্ষমা চাওয়া : জয়

সমালোচকদের উচিত ক্ষমা চাওয়া : জয়

ডেস্ক রিপোর্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় বিশ্বব্যাংক, প্রাক্তন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন ও গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক মুহাম্মদ ইউনূসের কড়া সমালোচনা করেছেন।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ কানাডার আদালতে খারিজ হয়ে যাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড পেজে তিনি এক লেখায় এই সমালোচনা করেন।

ওই প্রকল্পে দুর্নীতি হয়েছিল বলে যেসব সমালোচনাকারী সরব হয়েছিলেন, তাদের প্রতি ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

জয় তাঁর পোস্টে লেখেন, কানাডার কোর্ট পদ্মা সেতু দুর্নীতি মামলায় প্রকল্পটিতে কোনো দুর্নীতির প্রমাণ পায়নি এবং সকল অভিযোগ বাতিল করে দিয়েছে। বিচারক বলেছেন ‘গাল-গল্প ও গুজব’ এর ওপর ভিত্তি করে সাক্ষ্য তথ্য সাজানো হয়েছে। অন্য কথায় বলতে গেলে, এটি বানোয়াট।

তিনি লেখেন, ‘বিশ্বব্যাংক মনগড়া তথ্য উপস্থাপন করেছিল। আমি নিজে এসব তথ্য দেখেছি। এগুলো কেবল বানোয়াট ছিল, কোনো কিছুরই বিশদ ছিল না। কেবল একটা গোপন সূত্রের কথা বলা হয়েছিল যার নাম কখনো প্রকাশ করা হয়নি। এমনকি কানাডার আদালতের সামনেও সে নাম প্রকাশ করা হয়নি।’

জয় লিখেছেন, ‘বিশ্ব ব্যাংক আমার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্র করেছিলো তার সরকারের সুনাম নষ্ট করার উদ্দেশ্যে। আর বাংলাদেশ সরকারকে শায়েস্তা করতে তৎকালীন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন বিশ্ব ব্যাংককে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করার নির্দেশ দেন। হিলারি ক্লিনটন এটা করেছেন কারণ, মুহাম্মদ ইউনূস আমার মায়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হিলারিকে বার বার তাগিদ দিচ্ছিলেন।’

জয় লেখেন, ‘তার (ড. মুহাম্মদ ইউনূস) কারণে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামোর প্রকল্প বন্ধ করার চেষ্টা করেছিল। এই সেতুর ফলে বাংলাদেশের কয়েক কোটি মানুষ উপকৃত হবে এবং দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল বদলে যাবে। ইউনূস জেনেশুনেই বিদেশি শক্তির সহযোগিতা নিয়ে বাংলাদেশের ক্ষতি করতে চেয়েছিলেন।’

তিনি আরো লেখেন, ‘এটা খুবই লজ্জাজনক যে, আমাদের তথাকথিত সুশীল সমাজের একটি অংশ দেশের বিপক্ষে চলে যায় এবং বিশ্বব্যাংকের অনুকুলে অবস্থান নেয়। তারা দেশের অত্যন্ত সম্মানিত, দক্ষ ও পরিশ্রমী কিছু মানুষের সম্মান ভুলুণ্ঠিত করেছেন। আমার মায়ের প্রাক্তন উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমানের মতো মানুষের সম্মান কাদায় ডুবিয়ে দেওয়া হয়েছে। এইসব লোক যারা বাংলাদেশের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন তারা দেশপ্রেমিক নন।’

জয় লিখেছেন, ‘তাদের উচিত (সমালোচক) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার আওয়ামী লীগ সরকার ও সম্মান ক্ষুণ্ন হওয়া মানুষদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা। বাংলাদেশের কাছেও তাদের ক্ষমা চাওয়া উচিত।’

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের মামলায় কোনো দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে রায় দেন কানাডার টরোন্টোর এক আদালত। তাই কানাডার মন্ট্রিলভিত্তিক প্রকৌশল প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের প্রাক্তন তিন কর্মকর্তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

x

Check Also

‘পাস্তুরিত দুধ নিয়ে কারসাজি আছে কি না দেখা উচিত’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : পাস্তুরিত দুধের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টির ক্ষেত্রে দেশের দুধ আমদানিকারকদের কোনো কারসাজি আছে কি না, তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী ...

নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক ২১ জানুয়ারি

সচিবালয় প্রতিবেদক : নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক আগামী সোমবার (২১ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মন্ত্রিসভা ও রিপোর্ট অনুবিভাগ) মো. রেজাউল আহসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, নতুন সরকারের প্রথম মন্ত্রিসভা বৈঠকটি ...

‘বাংলাদেশের উন্নয়ন কেউ থামাতে পারবে না’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে যাত্রা শুরু করেছে এবং এই উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না। বুধবার বিকেলে রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের নিজস্ব জায়গায় এবং নিজস্ব অর্থে নবনির্মিত চ্যান্সেরি ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে প্রদত্ত ...

শিরোনামঃ