পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > বাংলাদেশ > রাজনীতি > ৩৫০ পাগলের সঙ্গে তিন মাস জেলে ছিলেন বঙ্গবন্ধু : আমু

৩৫০ পাগলের সঙ্গে তিন মাস জেলে ছিলেন বঙ্গবন্ধু : আমু

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, ঐতিহাসিক ছয় দফা ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধুকে কারাগারে সাড়ে তিনশ পাগলের সঙ্গে তিন মাস রাখা হয়েছিল। এ কথা অনেকেই জানেন না।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ- বিশ্ব ইতিহাসের অনন্য দলিল’শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটি।

বঙ্গবন্ধু রাজনৈতিক সংগ্রামমুখর জীবনের বিভিন্ন ঘটনা তুলে ধরেন আমির হোসেন আমু। তিনি বলেন, ছয় দফা ঘোষণার পর আইয়ুব খান অস্ত্রের ভাষায় মোকাবিলা করার কথা বলেছিল। বঙ্গবন্ধুকে বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছিল। ঐতিহাসিক ছয় দফা ঘোষণা দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু খুব বেশি সময় পান নাই। খুলনা, যশোর, নারায়ণগঞ্জ ও সিলেট- প্রত্যেকটি জায়গায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তাকে উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিতে হয়েছে। সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জে ১৯৬৬ সালের ৮ মে তিনি ফিরে আসার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হলো। তখন কারাগারে সাড়ে তিনশ পাগলের সঙ্গে তাকে তিন মাস রাখা হয়েছিল। এ কথা অনেকেই জানেন না। এই কারাগারে থাকা অবস্থায় দুই বছরের মাথায় তাকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি করে ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, তখন থেকে আমরা কেউ জানতাম না, পরিবারের কেউ জানত না, বঙ্গবন্ধু কোথায় আছেন, কেমন আছেন, জীবিত আছেন না মৃত। আগরতলা মামলা যেদিন শুরু হয়, সেদিনেই আমরা জানতে পারলাম তিনি জীবিত আছেন এবং তিনি এই মামলার প্রধান আসামি।

৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের তাৎপর্য তুলে ধরে আমির হোসেন আমু বলেন, ভাষণটি ছিল অত্যন্ত ক্যালকুলেটিভ। এই সাড়ে আঠার মিনিটের ভাষণের একটি পার্ট ছিল পাকিস্তানের ২৩ বছরের নির্যাতন-নিষ্পেষণের ইতিহাস। একটি পার্ট ছিল- তিনি যখন বক্তব্য দিচ্ছেন ওই দিন এবং তার আগের পাঁচ দিনে কীভাবে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, রংপুর থেকে শুরু করে রাজশাহী, খুলনায় মানুষের ওপর গুলি করা হচ্ছে, কীভাবে মানুষ মারা যাচ্ছে। আর তৃতীয় পার্ট হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের পার্ট এবং একটি গেরিলা যুদ্ধের রূপরেখা।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এবং প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম। সেমিনার পরিচালনা করেন দলের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমীন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুনুর রশিদ। আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, সেক্টর কমান্ডার অবসরপ্রাপ্ত মেজর রফিকুল ইসলাম বীর প্রতীক, দৈনিক সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, সাংবাদিক বদরুল আহসান প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির সদস্য সচিব ড. হাছান মাহমুদ।

x

Check Also

ধর্ষণের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অবস্থান চান রওশন

ধর্ষণের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অবস্থান দরকার বলে মনে করেন বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ। বুধবার (০৭ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, দেশজুড়ে একের পর এক ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। সেই সঙ্গে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক ...

যুবলীগকে মাঠে থাকার নির্দেশ

ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে যুবলীগকে মাঠে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন সংগঠনটির চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ। রোববার (৪ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর নুর কমিউনিটি সেন্টারে যুবলীগ আয়োজিত জরুরি নির্বাচনী সভায় ...

‘আন্দোলনের নামে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড মেনে নেওয়া হবে না’

আন্দোলনের নামে কোনো ধরনের সন্ত্রাস সৃষ্টি, জণভোগান্তি এবং জণমালের ক্ষতি সরকার মেনে নেবে না বলে বিএন‌পিকে সতর্ক করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। রোববার (০৪ অক্টোবর) রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ...

শিরোনামঃ