পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > বিনোদন > অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা আর নেই

অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা আর নেই

বিনোদন ডেস্ক : বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা আর নেই। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এ খবর প্রকাশ করেছে।

অন্য একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুস ও হৃদরোগে ভুগছিলেন বিদ্যা সিনহা। গত বৃহস্পতিবার তীব্র শ্বাসকষ্ট হলে তাকে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির ৪৮ ঘণ্টা পর তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়। চিকিৎসকরা আরো কয়েকদিন তাকে পর্যবেক্ষণে রাখেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইহলোক ত্যাগ করেন এই অভিনেত্রী।

সত্তর দশকে ‘রজনীগন্ধা’, ‘ছোটি সি বাত’, ‘পতি পত্নী অউর ওহ’ সিনেমায় অভিনয় করে দর্শকের মন জয় করেছিলেন বিদ্যা সিনহা। আশির দশকের শেষের দিকে অভিনয় থেকে আড়ালে চলে যান। ২০১১ সালে দীর্ঘদিনের বিরতি ভেঙে সালমান খানের ‘বডিগার্ড’ সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে ফিরেন এই অভিনেত্রী। অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ ফিল্মফেয়ারসহ একাধিক সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন এই অভিনেত্রী।

১৯৬৮ সালে ভেঙ্কটেশ্বরানের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন বিদ্যা সিনহা। ১৯৯৬ সালে ভেঙ্কটেশ্বরান মৃত্যুবরণ করেন। তারপর পালিত কন্যা জানভির সঙ্গে অস্ট্রেলিয়াতে পারি জমান, সেখানে পরিচয় হয় ডা. নেতাজি ভিমরাও সালুনখের সঙ্গে। ২০০১ সালে নেতাজির সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন বিদ্যা সিনহা।

x

Check Also

ছবিতে আলোচিত শ্বেতা

বিনোদন ডেস্ক :  ভারতীয় অভিনেত্রী শ্বেতা তিওয়ারি। টেলিভিশন নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে শোবিজ অঙ্গনে পা রাখেন তিনি। টিভি সিরিয়ালে অভিনয় করে অল্প সময়ের মধ্যে পরিচিতি লাভ করেন শ্বেতা। পরবর্তীতে নাম লেখান চলচ্চিত্রে। হিন্দি, কন্নড়, পাঞ্জাবি, মারাঠিসহ ...

ঈদের দ্বিতীয় দিন ছোট পর্দার নাটক-টেলিফিল্ম

বিনোদন ডেস্ক: বরাবরের মতো এবারো টেলিভিশন চ্যানেলগুলো নানা আয়োজনে সাজিয়েছে তাদের অনুষ্ঠানমালা। ঈদুল আজহা উপলক্ষে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর অন্যতম আকর্ষণ থাকে নাটক-টেলিফিল্ম। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে ঈদের দ্বিতীয় দিন যেসব নাটক-টেলিফিল্ম প্রচারিত হবে ...

ঈদের দিন খুব কেঁদেছিলাম: ববিতা

ঈদ মানে আনন্দ। আর এই আনন্দটা শৈশবে বেশি হতো। ঈদে অনেক মজা করতাম। ছোটবেলার ঈদ মানেই ছিল ঈদি কালেকশন। এটাই ছিলো আসল মজা! সকালবেলা নতুন জামা-কাপড় পরে আত্মীয়-স্বজনদের বাসায় যেতাম। চাচা-চাচি, দাদা-দাদি, নানা-নানিদের কাছ থেকে ...

শিরোনামঃ