পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > আমাদের রাজশাহী > রাজশাহীর ভোটের সমীকরণে বড় ফ্যাক্টর নারী

রাজশাহীর ভোটের সমীকরণে বড় ফ্যাক্টর নারী

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারাদেশের মত রাজশাহীতেও তরুণ ও নারী ভোটারদের সংখ্যা বেশি। বিভিন্ন পর্যায়ের নির্বাচনগুলোতে পুরুষ ভোটারদের তুলনায় ভোট কেন্দ্রে নারী ভোটারদেরই উপস্থিতি বেশি দেখা যায়। এবারের নির্বাচনে নারী ভোটাররা অনেক প্রার্থীর জন্যই বড় ব্যবধান তৈরী করবে। কোনো কারণে নারী ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে না গেলে অনেক প্রার্থীর জন্য কাল হয়ে দাড়াতে পারে। তাই ফলাফল নির্ধারণে বড় ফ্যাক্টর বা নিয়ামক এই নারী ভোটাররা।
নারীদের ভোট আদায়ে সক্রিয় রয়েছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীদের পাশাপাশি তাদের স্ত্রীরাও যাচ্ছেন নারীদের কাছে। এছাড়াও সক্রিয় রয়েছে রাজনৈতিক দলের নারী সংগঠনগুলো। দলে দলে বিভিন্ন সভা ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীদের স্ত্রী ও বিভিন্ন নারী নেত্রীরা।

রাজশাহীর ছয়টি সংসদীয় আসনের চারটিতেই রয়েছে নারী ভোটারদের আধিক্য। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি নারী ভোটার রয়েছেন রাজশাহী-২ (সদর) আসনে। সিটি করপোরেশন এলাকা নিয়ে গঠিত আসনটিতে পুরুষের চেয়ে ৫ হাজার ৯৬৮ জন নারী ভোটার বেশি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৩১০ জন বেশি নারী ভোটার রয়েছে রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনে। এরপরেই রয়েছে ১ হাজার ৫৯৩ জন বেশি নারী ভোটার নিয়ে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) ও ৫৮১ জন নারী ভোটার বেশি নিয়ে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনটি।

অন্যদিকে রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) ও রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসন দুইটিতে পুরুষ ভোটার কিছুটা বেশি রয়েছে। নারী ভোটারের তুলনায় রাজশাহী-৫ এ ১ হাজার ৬৯৩ জন ও রাজশাহী-৬ এ ৮১৬ জন পুরুষ ভোটার বেশি রয়েছে। তবে সংখ্যা যাই হোক না কেন, নারী ভোটাররাই ফলাফলের ব্যবধান গড়ে দেবে বলে মনে করছেন সকল রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ।

জেলা নির্বাচন অফিসের তথ্যানুযায়ী, রাজশাহীর ছয়টি আসনে এবার মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ লাখ ৪৭ হাজার ৫৭৭ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৮১৭ জন এবং নারী ৯ লাখ ৭৮ হাজার ৭৬০ জন। অর্থাৎ পুরুষের তুলনায় ৯ হাজার ৯৪৩ জন নারী ভোটার বেশি রয়েছে। এই ছয়টি সংসদীয় আসনের ভোটাররা এবার জেলার ৬৯৫টি কেন্দ্রে মোট ৪ হাজার ১৩৪টি কক্ষে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। বরাবরের মতো এবারও নারী ও পুরুষ ভোটারদের জন্য আলাদা ভোটকক্ষ থাকবে।

রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮২ হাজার ৭০৬ জন। তাদের মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫০৮ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৮৯ হাজার ১৯৮ জন। আসনটিতে মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১৪৫টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৭৬২টি। যার মধ্যে ৩৭৫টি পুরুষদের ও ৩৮৭টি নারীদের। গোদাগাড়ীতে ভোটকেন্দ্র ৯৪টি এবং ভোটকক্ষ ৪৫০টি। রাজশাহীর তানোরে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৫১টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা রয়েছে ৩১২টি। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী। বিএনপির প্রার্থী রয়েছেন ব্যারিস্টার আমিনুল হক।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত রাজশাহী-২ (সদর) আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন। পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫ জন। নারী ভোটার ১ লাখ ৬২ হাজার ৫৩ জন। ফলে এ আসনে ৫ হাজার ৯৬৮ জন নারী ভোটার বেশি। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশা পেয়েছিলেন ১ লাখ ১৬ হাজার ৫৯৯ ভোট। আর চারদলীয় জোটের প্রার্থী মিজানুর রহমান মিনু পেয়েছিলেন ৮৯ হাজার ৫০ ভোট। এবারও এ দুই গুরুত্বপূর্ণ প্রার্থীর মধ্যেই মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফলে এবার এ আসনে ভোটের ফলাফলকে নারী ভোটাররা প্রভাবিত করতে পারেন বলে এলাকায় আলোচনা রয়েছে।

রাজশাহী সদর আসনটিতে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০৪টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৭৭৮টি। এর মধ্যে পুরুষদের ৩৭৫টি ও নারীদের জন্য ৪০৩টি ভোটকক্ষ রয়েছে। রাজপাড়া জোনে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৬০ এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা রয়েছে ৩৩১টি। আর বোয়ালিয়া জোনের জন্য ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা রয়েছে ৪৪টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৪৪৭টি।

রাজশাহী শহর ঘেঁষা রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে নারী ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৭৯ হাজার ৬২২ জন ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭৯ হাজার ৪১ জন। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংসদ সদস্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আয়েন উদ্দিন। তার বিরুদ্ধে মাঠে লড়বেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শফিকুল হক মিলন। এখানে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১২০টি এবং ভোটকক্ষ ৭৩৩টি। পুরুষদের জন্য ৩৬৫টি ও নারীদের জন্য ৩৬৮টি ভোটকক্ষ রয়েছে। পবায় ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৭৬টি ও ভোটকক্ষ ৪৪০টি এবং মোহনপুর ভোটকেন্দ্র ৪৪টি ও ভোটকক্ষের সংখ্যা ২৯৩টি।

রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে মোট ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৮০ হাজার ১৭৫ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৪০ হাজার ৮৮৪ জন ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৩৯ হাজার ২৯১ জন। আসনটিতে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০৬টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৫৫৮টি। যার মধ্যে পুরুষদের ২৭৮টি ও নারীদের ২৮০টি ভোটকক্ষ রয়েছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রয়েছেন সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক। বিএনপির প্রার্থী রয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য আবু হেনা।

বর্তমান সাংসদদের মধ্যে একমাত্র মনোনয়নবঞ্চিত রয়েছে রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের বর্তমান সাংসদ আব্দুল ওয়াদুদ দারা। আসনটিতে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮১৭ জন। যার মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৪৯ হাজার ৫৬২ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫১ হাজার ২৫৫ জন। আসনটিতে মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১১৩টি এবং ভোটকক্ষ ৭৮২টি। এরমধ্যে পুরুষদের ৩৯২টি ও নারীদের জন্য ভোটকক্ষ থাকবে ৩৯০টি। দুর্গাপুর ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৫৩টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৪৩৯টি। পুঠিয়া ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৬০টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৩৪৩টি। আসনটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রয়েছেন ডা. মনসুর রহমান ও বিএনপির প্রার্থী রয়েছেন অধ্যাপক নজরুল নজরুল ইসলাম।

রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আওয়ামী লীগের প্রার্থী রয়েছেন বর্তমান সাংসদ ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। এ আসনের মোট ভোটার ৩ লাখ ৭ হাজার ৭৮ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ১৩১ জন ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ৯৪৭ জন। আসনটিতে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০৭টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৬২১টি। এরমধ্যে পুরুষদের ভোটকক্ষ ৩১১টি ও নারীদের ৩১০টি। চারঘাটে ৫২টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ভোটকক্ষের সংখ্যা ৩২৯টি। বাঘায় ৫৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ভোটকক্ষের সংখ্যা ২৯২টি। আসনটিতে বিএনপির প্রার্থী হলেন সদ্য সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ চাঁদ।

সারাদেশের ন্যায় রাজশাহীতেও রয়েছে নারী ভোটারদের আধিক্য। নারীদের ভোটই প্রার্থীদের জয় এনে দিতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তাই এবারের নির্বাচনে রাজশাহী ছয়টি আসনেই বিশেষ গুরুত্ব পাবে এই নারী ভোটাররা।

x

Check Also

উন্মোচন হলো রাজশাহীর বহুমুখী উন্নয়নের দ্বার

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করে রাজশাহীর বিভিন্নখাতে ব্যাপক উন্নয়নের লক্ষ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন ও চায়নার রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পাওয়ার চায়না‘র মধ্যে সমঝোতা স্মারক চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে। রোববার দুপুরে নগরভবন সভাকক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে রাজশাহী ...

রাজশাহীতে আম নামানো যাবে যেসব তারিখে

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীতে আম নামানোর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। রোববার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা, ফল গবেষক, আম চাষি ও আম ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিয়ম শেষে গাছ থেকে আম নামানোর সময় নির্ধারণ করা ...

‘সোনাদীঘি মার্কেটের ব্যবসায়ীদের বৈধভাবে স্থায়ী জায়গা দেয়া হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, আইন অনুয়াযী সোনাদীঘি মার্কেটের ব্যবসায়ীদের সিটি সেন্টারে পুর্নবাসন করা হবে। আমরা সোনাদীঘি মার্কেটের ব্যবসায়ীদের বৈধভাবে স্থায়ী জায়গা করে দিতে চাই। যাতে ব্যবসায়ীরা ভালোভাবে ব্যবসা ...

শিরোনামঃ