পরীক্ষামূলক প্রকাশনা - সাইট নির্মাণাধীন

Home > শিক্ষাঙ্গন > রাজশাহী বোর্ডে পাশে জয়পুরহাট, জিপিএ-৫ এ শীর্ষে বগুড়া

রাজশাহী বোর্ডে পাশে জয়পুরহাট, জিপিএ-৫ এ শীর্ষে বগুড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবারের এসএসসি পরীক্ষায় রাজশাহী বোর্ডে পাশের হারের দিক থেকে সব চেয়ে ভালো ফলাফল করেছে জয়পুরহাট জেলার শিক্ষার্থীরা। আর জিপিএ-৫ প্রাপ্তর দিক থেকে শীর্ষে বগুড়া জেলা। তবে শিক্ষা নগরী খ্যাত রাজশাহী জেলার শিক্ষার্থীরা রয়েছে আট জেলার মধ্যে তিনে। রোববার দুপুরে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ড. মো: আনারুল হক আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন।

বোর্ডের সার্বিক ফলাফল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, রাজশাহী বিভাগের আট জেলার মধ্যে পাশের হারে শীর্ষে উঠে এসেছে জয়পুরহাট জেলা। জেলার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ৮ হাজার ৫৮৮ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৭ হাজার ৬১১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৯০ জন। ৮৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ ছেলে এবং ৯০ দশমিক ৪৩ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে এ জেলায়। ৯২ দশমিক ১২ শতাংশ পাশের হার নিয়ে গত বছর বোর্ডে দ্বিতীয় স্থানে জেলাটি।

পাশের হারে এক ধাপ নেমে গত বছরের পাবনা জেলা এবার বোর্ডে দ্বিতীয় অবস্থানে। এখানকার পাশের হার ৮৮ দশমিক ২০ শতাংশ। এ জেলার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ২৭ হাজার ৫১২ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৪ হাজার ২৫৬ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ১১ জন। এখানকার ৮৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ ছেলে এবং ৮৮ দশমিক ০৬ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। গত বছর এ জেলার পাশের হার ছিলো ৯২ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

৮৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হওয়ায় বোর্ডে তৃতীয় অবস্থানে শিক্ষা নগরী খ্যাত রাজশাহী। এখানকার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ৩১ হাজার ৯২৯ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৭ হাজার ৯৬৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৫৭৬ জন। রাজশাহীতে ৮৬ দশমিক ৪২ শতাংশ ছেলে এবং ৮৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। ৮৯ দশমিক ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হওয়ায় গত বছর বোর্ডে সপ্তমে ছিলো রাজশাহী জেলা।

এবার বোর্ডে চতুর্থ অবস্থানে নওগাঁ জেলা। এখানকার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ২৪ হাজার ৭৯৭ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২১ হাজার ৬৪০ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৩৩৭ জন। নওগাঁয় ৮৪ দশমিক ৯৫ শতাংশ ছেলে এবং ৮৮ দশমিক ৪০ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। ৯০ দশমিক ৮৬ শতাংশ পাশের হার নিয়ে গত বছরও একই অবস্থানে ছিলো এ জেলা।

দুই ধাপ নিচে নেমে বোর্ডে পঞ্চম অবস্থানে বগুড়া জেলা। এখানকার ৮৬ দশমিক ৪১ শতাংশ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে এবার। এ বছর এ জেলায় মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ৩৩ হাজার ৪৩৩ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৮ হাজার ৮৮৮ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৪৪ জন। বগুড়ায় ৮৫ দশমিক ০৩ শতাংশ ছেলে এবং ৮৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। গত বছর ৯১ দশমিক ৩৪ শতাংশ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হওয়ায় বোর্ডে তৃতীয় অবস্থানে বগুড়া।

গত বছর বোর্ডে তলানিতে থাকা সিরাজগঞ্জ জেলা দুই ধাপ উপরে উঠে এবার দাঁড়িয়েছে ষষ্ঠ অবস্থানে। এ জেলায় পাশের হার ৮৫ দশমিক ০৪ শতাংশ। এখানে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ৩২ হাজার ৯২৬ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৮ হাজার একজন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৫৬ জন। সিরাজগঞ্জে ৮৫ দশমিক ০১ শতাংশ ছেলে এবং ৮৫ দশমিক ০৮ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। গত বছর এখানকার পাশের হার ছিলো ৮৯ দশমিক ১৭ শতাংশ।

৮৩ দশমিক ১৭ শতাংশ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হওয়ায় বোর্ডে সপ্তম অবস্থানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। এখানকার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১৫ হাজার ৪২৮ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১২ হাজার ৮৩২ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে এক হাজার ২০৫ জন। চাঁপাাইনবাবগঞ্জে ৮১ দশমিক ৯১ শতাংশ ছেলে এবং ৮৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। ৯০ দশমিক ৭৫ শতাংশ পাশের হারে গত বছর পঞ্চম অবস্থানে ছিলো এ জেলা।

ফলাফলে এবার বোর্ডের তলানিতে নাটোর জেলা। এ জেলায় পাশের হার ৮২ দশমিক ৩০ শতাংশ। এখানে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১৯ হাজার ২৪৯ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৫ হাজার ৮১৪ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে একহাজার ২৬৮ জন। নাটোরে ৮০ দশমিক ৯৭ শতাংশ ছেলে এবং ৮৩ দশমিক ৭১ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। ৮৯ দশমিক ৮৯ শতাংশ পাশের হার নিয়ে গত বছর বোর্ডে ষষ্ঠ অবস্থানে ছিলো নাটোর জেলা।

এবছর রাজশাহী বোর্ডে পাশের হার ৮৬ দশমিক ০৭ শতাংশ। এবছর বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো এক লাখ ৯৪ হাজার ৭৭৫ জন। সবমিলিয়ে এক লাখ ৬৬ হাজার ৮৬৫ জন পরীক্ষার্থী পাশ করেছে। এবছর ৮৭ দশমিক শূণ্য ৮ শতাংশ মেয়ে এবং ৮৫ দশমিক ১৫ শতাংশ ছেলে পাশ করেছে। এবছর মোট জিপিএ ১৯ হাজার ৪৯৮ জন। এর মধ্যে ৯ হাজার ৪৮০ জন মেয়ে এবং ১০ হাজার ১৮ জন ছেলে।

x

Check Also

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি’

করোনার কারণে এ বছর পিইসি বা প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা না নেয়ার প্রস্তাব দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সারসংক্ষেপ পাঠানো হলেও এখনো এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন। রোববার সাংবাদিকদের ...

একাদশে ভর্তির জন‌্য প্রথম ধাপে আবেদন সাড়ে ১৩ লাখ

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন‌্য প্রথম ধাপে আবেদন করেছে ১৩ লাখ ৪৩ হাজার শিক্ষার্থী। আবেদনের শেষ সময় ছিল বৃহস্পতিবার রাত ১২টা পর্যন্ত। শুক্রবার (২১ আগস্ট) ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক ড. ...

সমাপনী বাতিল হলেও দিতে হবে বার্ষিক পরীক্ষা

চলতি বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা হচ্ছে না। একই সঙ্গে বাতিল করা হচ্ছে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী (ইইসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা। করোনা পরিস্থিতির কারণে ...

শিরোনামঃ